Home / Uncategorized / এ হলো সেই আবুল হাসনাত জনি

এ হলো সেই আবুল হাসনাত জনি

সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ চট্রগ্রাম মহানগর শাখায় জনাব আবুল হাসনাত জনি ভাইকে সাধারণ সম্পাদক মনোনিত করায় সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ…

Posted by সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ লক্ষীপুর on Tuesday, August 2, 2016

এ হলো সেই আবুল হাসনাত জনি। আমার জানামতে সে একটা আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন ধান্দাবাজি, চিটার। সাবধান তার থেকে দূরে থাকবেন। এক সময় প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান দাবীকারী মোঃ মাহাবুবুর রহমান এর কমিটির চট্টগ্রাম মহানগরের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন এই কুখ্যাত আবুল হাসনাত জনি।২০১৬ সালে সজীব ওয়াজেদ জয় স্যারের সঙ্গে কয়েকটি ছবি তুলে সরাসরি চট্টগ্রামে গিয়ে এই ছবিকে পুঁজি করে নিজেকে প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করে। এই ঘৃণ্য কাজের জন্য তার ফিগার দাবী করছি এবং প্রতিবাদ ও ধীককার প্রদান করছি।সে নিজেকে প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান দাবি করে আমাকে তার কমিটির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিয়োগ করে কৌশলে এক লক্ষ পঁচাশি হাজার টাকা খরচ করিয়ে আমাকে না জানিয়ে জনাব সাগর হোসেন নামে একজনকে ভূল বুঝিয়ে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মনোনীত করে। আমি তার কমিটিতে তিন মাসের মত নিয়োজিত থেকে কোন ধরনের সাংগঠনিক কার্যক্রম করতে পারি নাই। বারবার তাকে লিগ্যাল কাগজের জন্য বলি। তার জন্য আমি ঢাকায় অফিস ভাড়া নেই, কম্পিউটার, ওয়েবসাইট এর খরচ, স্টাফ স্যালারি, আসবাবপত্র ও তার পারিবারিক খরচ পর্যন্ত দেই। সব মিলিয়ে এক লক্ষ 85 হাজার টাকা খরচ করি। অথচ সে আমার কোন ধরনের দোষ ত্রুটি না থাকা সত্বেও অন্য আরেকজনকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করে কোন সংগঠনের নিয়ম পালন করেছে সে নিজেই জানে না। আমার জানামতে সে একজন দ্বাদশ শ্রেণী পাস করা, জীবদ্দশায় কখনো দেশের বাহিরে যাই নাই। এবং অর্থনৈতিক ভাবে সম্পন্ন অসচ্ছল। সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ একটি সাইনবোর্ড হিসাবে ব্যবহার করে একটা ওয়েবসাইট প্রদর্শনপূর্বক নিজেকে প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান দাবি করে বিভিন্ন স্থানে প্রতারণা করে বেড়াচ্ছে। বারবার তাগাদা দেয়া সত্তেও যখন লিগ্যাল পেপারস দিতে পারছিল না। তখন সে আমাকে পরিহার করার জন্য অন্য কৌশল হিসাবে অন্য একজন সাধারণ সম্পাদক নিয়োগ করে। সকলের কাছে বিচার প্রার্থনা করছি তাকি আইনের আওতায় নেওয়া হোক অথবা সামাজিক ভাবে একটা মীমাংসা প্রয়োজন। তাই এই ধরনের প্রতারক হতে সাবধান। আমি অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি অন্য কেউ যেন এভাবে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে বিষয়ে সজাগ থাকবেন। আমার এই বিষয়ে কমপক্ষে বিশ জন লোক অবগত আছে এবং পবিত্র নামের সংগঠনটি সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ কে কুলুষিত ও নস্যাৎ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আছে। আগামীতে অবশ্যই তাকে আইনের আওতায় আনা হবে এটি আমার ওয়াদা। এক এক করে সব ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে।

অনুরোধক্রমে
লায়ন মতিউর রহমান টিপু
চেয়ারম্যান সজীব ওয়াজেদ জয় পরিষদ
কেন্দ্রীয় কমিটি

About admin

Check Also

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার বিচারের দাবিতে উত্তাল নোয়াখালী।

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার বিচারের দাবিতে উত্তাল নোয়াখালী। নিউজ ডেস্ক।। .  নোয়াখালীতে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে গুলিবিদ্ধ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *