Home / Uncategorized / প্রতিপক্ষের আক্রমণে আছমা আক্তার সৃতি হাসপাতালে।  থানায় মামলা, ছেলে সহ স্বামী /স্ত্রী কারাগারে।

প্রতিপক্ষের আক্রমণে আছমা আক্তার সৃতি হাসপাতালে।  থানায় মামলা, ছেলে সহ স্বামী /স্ত্রী কারাগারে।

প্রতিপক্ষের আক্রমণে আছমা আক্তার সৃতি হাসপাতালে।  থানায় মামলা, ছেলে সহ স্বামী /স্ত্রী কারাগারে।

নিউজ ডেস্ক।।
.
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের ০৭ নং একলাশপুর ইউনিয়নের ০৮ নং ওয়ার্ড অনন্তপুর গ্রামের বরা কাজী বাড়িতে আমির হোসেন ও তার পরিবারের সদস্যদের  পিটুনিতে আহত হয়ে বিবি  আছমা (সৃতি) (১৭) হাসপাতালে।  থানায় মামলা, ছেলে সহ স্বামী /স্ত্রী কারাগারে।
ঘটনার বিবরনে জানা যায় গত ১৩ (ফেব্রুয়ারি) ২০২১হং শনিবার দুপুরে আবু জাহেরের মেয়ে বিবি আছমা (সৃতি) এর সাথে আমির হোসেনের বোন শারজাহান বেগমের সাথে সামান্য কথা কাটাকাটি হয়। এরই জেরধরে ঐদিন সন্ধ্যায় আনুমানিক ০৬:২০ মিনিটের সময় প্রতিপক্ষগন পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে অনধিকারভাবে আবু জাহেরের বসতঘরে প্রবেশ করিয়া আমির হোসেন আছমার ঘাড় মটকে ধরে রাখে, এবং বাকীরা এলোপাথাড়ি কিল ঘুশি ও লাথি মারতে থাকে। তাদের মাইরের ছোটে আছমা মাটিতে লুটিয়ে পড়ে, এমতাবস্থায় আছমার পরিবারের শোর চিৎকারে বাড়ির লোকজন লোকজন এসে আছমাকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ভর্তির পর কর্তব্যরত ডাক্তার আছমাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন কিন্তু ভিক্টিমের পরিবারের আর্থিক দুর্বলতার কারণে ঢাকায় নিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে কর্তব্যরত ডাক্তার আছমার বাবা থেকে নাদাবি পত্র ( Risk Bond paper) এ স্বাক্ষর নিয়ে চিকিৎসা করার প্রতিশ্রুতি দেয়। এই বিষয়ে ভিকটিমের মা আমেনা বেগম বাদি হয়ে বেগমগঞ্জ মডেল থানায় ০৭ জনকে আসামী করে একটি অভিযোগ দায়ের করলে অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তাৎক্ষণিক হাসপাতালে যান এবং ঘটনার সত‍্যতা পেয়ে রাতেই ০১ নং আসামী আমির হোসেন (৪৫) ও তার ছেলে ০৪ নং আসামী ওমর ফারুক (২০) কে গ্রেপ্তার করে। পরদিন ১৪ ফেব্রুয়ারি দুপুরে ০৩ নং আসামী অহিদের নেছা (৩৬) কে আটক করে আদালতে পাঠালে  বিজ্ঞ আদালত আসামীদের কারাগারে প্রেরন করেন।
 এদিকে হাসপাতালের ডাক্তার ১৪ তারিখ  রাত ১১:০০ টা পর্যন্ত আছমার  কোনো চিকিৎসার ব‍্যবস্থা না নেয়ায় ভিকটিমের বাবা নিরুপায় হয়ে জয়যাত্রা টেলিভিশনের ব‍্যুরো প্রধান গাজী আমিনুল ইসলাম রুবেল কে বিষয়টি অবহিত করালে গাজী রুবেল তাৎক্ষণিক হাসপাতালে ভিকটিমকে দেখতে যায় এবং কেন চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না,  বিষয়টি জানতে ও তথ‍্য সংগ্রহ করতে গেলে কর্তব্যরত ডিউটি ডাক্তার সাংবাদিক গাজী রুবেলের কর্তব্য কাজে বাধা প্রদানসহ  অসভ্য আচরণ করে যাহা রীতিমতো অসম্মান জনক। তিনি বিষয়টি আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার কে জানাতে গিয়ে দেখেন তিনি তার অফিসে নেই, মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। ডাক্তারের এমন আচরণে সাংবাদিক মহল শংকিত। তাই বিষয়টি নিয়ে বৃহত্তর নোয়াখালীর সাংবাদিক সংগঠন আজ হাসপাতাল পরিদর্শন করেছেন বলে জানা গেছে।

About নিজস্ব প্রতিবেদক

Check Also

নোয়াখালী বেগমগঞ্জে দোকান নিয়ে  বিরোধের জের ধরে সাংবাদিকের উপর ফের সন্ত্রাসী হামলা। 

নোয়াখালী বেগমগঞ্জে দোকান নিয়ে  বিরোধের জের ধরে সাংবাদিকের উপর ফের সন্ত্রাসী হামলা। নিউজ ডেস্ক।। . …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *